“এ ধরনের বাজে কাজ আমি করতে পারিনা,আমি শিক্ষিত ছেলে”,বললেন জায়েদ খান

 

উচ্চ আদালতের রায় প্রকাশ হয়েছে,সে হিসেবে চলচিত্র শিল্প সমিতির সাধারন সম্পাদক পদে বহাল থাকছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান।

নিজের দাপ্তরিক চেয়ারে বসার জন্য আজ এফডিসিতে এসেছিলেন নায়ক জায়েদ যদিও এসে দেখেন রুম তালা দেওয়া।

দীর্ঘসময় প্রচেষ্টার পরে তালা ভেঙে নিজ আসনে বসেছেন জায়েদ খান।

পরবর্তীতে সংবাদ সম্মেলন করেন জায়েদ খান।

এসময়ে জায়দে সাংবাদিকদের বলেন “আমি চেয়ারের পাগল না,আমি আদালতে দৌড়েছি অধিকার আদায়ের জন্য,আমি পরাজিত হলে নিপুন আপাকে ফুল দিয়ে স্বাগতম জানাতাম”

 

অরুণা বিশ্বাস,সূচরিতা,জয় চৌধুরীসহ অনেক শিল্পি উপস্থীত ছিলেন এসময়ে।

 

জায়েদ ক্ষুদ্ধ হয়ে আরো বলেন, “হেরে যেয়ে তারা আমার নামে যা তা বলেছে।অবৈধভাবে আমার চেয়ার দখল করেছে।একটি মেয়েকে দিয়ে এটাও বলিয়েছে যে আমি নাকি তাকে হোটেলে নিয়ে গেছি।এসব নিয়ে তারা ইউটিউবে বাজে ভাবে প্রচারনা চালাচ্ছে।আমি একটা শিক্ষিত ছেলে,এ ধরনের বাজে কাজ আমি করতে পারি? তারা প্রমান করে দেখাক,পারবেনা।আমাকে নিয়ে এমন কোনো পরিকল্পনা নেই তারা করেনি।মিথ্যা স্ক্রিনশর্ট বানিয়েছে।মার্ডার কেসে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছে,আমার বিরুদ্ধে র‍্যালি করালো।শিল্পী সমিতি দখল করা যায় না।”

 

গত জানুয়ারির ২৮ তারিখে অনুষ্ঠিত হয় শিল্পী সমিতির নির্বাচন,সেখানে সাধারন সম্পাদক পদে সহকর্মির দের ভোটে জয়লাভ করেন এই ঢালিউড অভিনেতা।

কিন্তু ঢালিউডের আরেক জনপ্রিয় অভিনেত্রী নিপুন আক্তার মেনে নেননি তার হেরে যাওয়াকে।

আপিল বোর্ডের দ্বারস্থ হন নিপুন।এসময় নিপুনকে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় জয়ী ঘোষণা করেন সোহানের নেতৃত্বে গঠিত আপিল বোর্ড।পরবর্তীতে তে পদ নিয়ে জটিলতার সৃষ্টি হলে দায়িত্ব চলে যায় হাই কোর্টে।

অনেকবার শুনানির ডেট পিছানোর পর দিন ধার্য হয় বুধবার।শুনানি শেষে জায়েদ খানের পক্ষে রায় ঘোষনা করে হাই কোর্ট।

Leave a Reply

Your email address will not be published.