পেয়ারা পাতার ২০ টি উপকারীতা

প্রিয় বন্ধুরা,আজ আপনাদের আমি পেয়ারা পাতার কিছু অসাধারণ উপকারিতা সম্পর্কে বলতে চলছি। পেয়ারা পাতার উপকারিতাগুলো হলোঃ-

১)পেয়ারা পাতা ডায়েরিয়া প্রতিরোধ করেঃ-

পেয়ারা পাতায় শক্তিশালী অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল গুন আছে যা ডায়েরিয়ার জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে।

২)ওজন কমাতে সাহায্য করেঃ-

পেয়ারা পাতা কমপ্লেক্স স্টার্চকে চিনিতে পরিণত হওয়া প্রতিরোধ করে।ফলে শরীরে ফ্যাট জমে না।আর,এভাবে পেয়ারা পাতা ওজন কমাতে কার্যকরী।

৩)ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করেঃ-

ডায়েবিটিস রোগীদের রক্তের গ্লুকোজ কমাতে পেয়ারা পাতা কার্যকর ভুমিকা পালন করে।পেয়ারা পাতা মুলত শরীরে মল্টোজ ও সুক্রোজ এর শোষণ কমিয়ে রক্তের গ্লুকোজের পরিমান কমায়।

৪)ব্রংকাইটিস চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ঃ-

পেয়ারা পাতা ফুসফুসের এলভিউলি প্রসারিত করে।মিউকাস সিক্রোশন কমানোর মাধ্যমে কফ থেকে মুক্তি দেয়।

৫)এটি দাঁতের ব্যাথা ও গামের প্রদাহ ভাল করেঃ-

পেয়ারা পাতায় শক্তিশালী প্রদাহরোধী গুণ রয়েছে যা দাঁতের ব্যাথা ও গামের প্রদাহ ভাল করে।এছাড়া এটি জ্বর ঠোসা ও মুখের ঘা সরাতে কার্যকরি।

৬)হজমে সাহায্য করেঃ-

পেয়ারার পাতা ডাইজেসটিভ এনজাইমের প্রোডাকশন বাড়ানোর মাধ্যমে হজম শক্তি ভাল করে।পেয়ারার পাতাতে বিদ্যমান এন্টি ব্যাকটেরিয়াল গুণ পাকস্থলীর ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে পেটের ব্যাথা কমায়।

৭)ডেঙ্গু জ্বর চিকিৎসায় কার্যকরিঃ-

ডেঙ্গু জ্বর চিকিৎসার প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসেবে পেয়ারার পাতা ব্যবহৃত হয়।ডেঙ্গু জ্বরে প্লাটিলেট কাউন কমে যায় যেখানে পেয়ারার পাতা কোনো প্বার্শ প্রতিক্রিয়া ছাড়াই প্লাটিলেট কাউন বাড়াতে পারে।

৮)ক্যান্সার প্রতিরোধ করেঃ-

পেয়ারার পাতা ব্রেস্ট, প্রস্টেট,ওরাল এবং গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সারের মতো বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সরারের ঝুঁকি কমাতে পারে।

৯)কলেরা প্রতিরোধ করেঃ-

পেয়ারা পাতার শক্তিশালী অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল গুণ   কলেরা প্রতিরোধে কার্যকরী।

১০)এলার্জির প্রকোপ কমায়ঃ-

পেয়ারার পাতা হিটামিনের প্রোডাকশন বন্ধ করে এলার্জির প্রকোপ কমায়।

১১)কাটা ঘা ভাল করেঃ-

পেয়ারার পাতা দ্রুত ঘা শুকাতে সাহায্য করে।এছাড়াও এর এন্টি ব্যাকটেরিয়াল ও এন্টি ইনফ্লামেটরী গুণের কারণে দ্রুত ইনফেকশন ভালো হয়।

১২)ইমিউন সিস্টেম শক্তিশালী করেঃ-

পেয়ারার পাতা ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

১৩)ব্রন চিকিৎসায়ঃ-

পেয়ারার পাতা ত্বক হতে ব্রন ও কালো দাগ দূর করতে কার্যকরী ভুমিকা রাখে।এর একটি এন্টি সেপটিক আছে যা ব্রন সৃষ্টিকারী জীবাণুকে ধ্বংস করতে পারে।এজন্য পেয়ারার পাতার নির্যাস ব্রন ও

কালো দাগের স্থানে লাগাতে পারেন এবং লাগানোর কিছু সময় পর ধুয়ে ফেলবেন।

১৪)এন্টি এজিংঃ-

পেয়ারা পাতাতে প্রচুর এন্টি অক্সিডেন্ট আছে যা শরীর থেকে ফ্রি য্যার্ডিক্যাল দূর করে।ফলে ত্বক সজীব,সতেজ হয় এবং ত্বকে বয়সের ছাপ পড়া রোধ  করে।

১৫)ডার্মাটাইটিস প্রতিরোধ করেঃ-

পেয়ারা পাতাতে এসিটেট যৌগ থাকে যা ডার্মাটাইটিস ও ত্বকের অন্যান্য রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

১৬)ত্বকের চুলকানি থেকে মুক্তি দেয়ঃ-

চুলকানির জন্য দায়ী হিস্টামিনকে ব্লক করতে পেয়ারার পাতা কার্যকর ভূমিকা রাখে।ফলে পেয়ারার পাতার চা খেলে চুলকানি কমে।

১৭)গিরার ব্যাথা কমায়ঃ-

পেয়ারার পাতায় আর্থারাইটিস ব্যাথা কমানোর ক্ষমতা আছে।এতে বিদ্যমান কারসেটিন গিরার ব্যাথা হ্রাস করে।

১৮)চুল পড়া প্রতিরোধ করেঃ-

পেয়ারার পাতায় চুল পড়া প্রতিরোধ করার গুণ আছে।তাই,চুল পড়া প্রতিরোধ করতে মাথায় পেয়ারা  পাতার নির্যাস ব্যবহার করতে পারেন।যা আপনার চুল পড়া বন্ধ করতে পারে।

১৯)লিভারের সুরক্ষা করেঃ-

বিভিন্ন ধরনের ইনজুরি সারানের মাধ্যমে পেয়ারার পাতা লিভারের সুরক্ষা করে থাকে।এছাড়া,পেয়ারার পাতা লিভার থেকে ক্ষতিকর পদার্থ বের করতে সাহায্য করে।

২০)পুরুষের শুক্রাণু উৎপাদন বৃদ্ধি করেঃ-

পেয়ারা পাতার চা খেলে পুরুষের শুক্রাণু বৃদ্ধি পায়।ফলে পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।

Leave a Comment